বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৯ মে ২০১৬

বাণজ্যি নীতি

বাণজ্যি নীতি বভিাগ

উইং প্রধানের পদবী : সদস্য

 

বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের প্রধান কাজ দেশীয় শিল্পের স্বার্থ সংরক্ষণ। বিভিন্ন পণ্যের আমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে শুল্কহার হ্রাস বৃদ্ধি সংক্রান্ত বিষয়ে যৌক্তিকতাসহ সরকারকে যথাযথ পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে কমিশন দায়িত্ব পালন করে থাকে। শিল্প প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পণ্যের উৎপাদন খরচ, কাঁচামালের আমদানি ব্যয়, সম্পূর্ণায়িত পণ্যের আমদানি ব্যয়, জনবল, উৎপাদন ক্ষমতা, মূল্য সংযোজন, উৎপাদিত পণ্যের গুনগতমান ইত্যাদি বিশ্লেষণ করে কমিশন সুপারিশ প্রণয়ন করে। তথ্য বিশ্লেষণের কাজে কমিশন কতগুলি অর্থনৈতিক নির্দেশক [যেমন : ইফেকটিভ রেইট অব প্রটেকশন (ই.আর.পি), ডমেষ্টিক রির্সোস কস্ট (ডি.আর.সি) ইত্যাদি] ব্যবহার করে থাকে। এছাড়া, বাজার অর্থনীতি, অর্থনৈতিক পরিবেশ, দ্বি-পাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক বাণিজ্য ও শুল্ক চুক্তি, জনমত ইত্যাদি বিষয়ও বিবেচনা করা হয়। প্রয়োজনে কমিশন গণশুনানির আয়োজনও করে থাকে।

 

এছাড়া, নিয়মিত ও মন্ত্রণালয়ের চাহিদা অনুযায়ী তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে কমিশনের ‘মনিটরিং সেল’ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন প্রেরণ করছে, যার আলোকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সমগ্র বাংলাদেশের ‘দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ’-এর কাজ পরিচালনা করছে। উল্লেখ্য, Control of Essential Commodities Act, 1956 (Act 1 of 1956) section-3 এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক নিয়োগ আদেশ ২০১১ এর অনুচ্ছেদ ২০ অনুযায়ী বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের মনিটরিং সেল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। এ আদেশের আওতায় চিনি ও ভোজ্যতেল প্রাথমিকভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। পরবর্তীতে ১৫ জুলাই ২০১২খ্রিঃ তারিখে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এর একটি আদেশে পিঁয়াজ, রসুন, মশুর ডাল, ছোলা, সকল ধরণের মশলা এবং খাবার লবন অত্যাবশ্যকীয় পণ্য হিসেবে ঘোষণা করা হয়। সে মোতাবেক সকল পণ্যেরও আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় মূল্য পর্যালোচনা করে মতামত প্রণয়ন করে প্রেরণ করা হয়।

 

বাণিজ্য নীতি বিভাগের কাজ সমূহ : 

১)   শিল্প সহায়তা বিশ্লেষণ  ;

২)   শিল্প খাতের উপর সমীক্ষা পরিচালনা  ও প্রতিবেদন প্রণয়ন  এবং

৩)   বাণিজ্য নীতি মডেলিং ও উপাত্ত ব্যবস্থাপনা  বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ।

 

 

উদ্দেশ্য

দেশীয় শিল্পের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য নীতির সাথে সঙ্গতি রেখে শুল্ক ও বাণিজ্য বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ ও সুপারিশ প্রদান করা।

অঙ্গীকার

দেশীয় শিল্পকে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে বাজার অর্থনীতি, অর্থনৈতিক পরিবেশ, দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি এবং জনমত বিবেচনায় রেখে বাণিজ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন নীতি যেমন-আমদানি, রপ্তানি, শিল্প নীতি প্রণয়ন ও বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদনে সরকারকে বিশ্লেষণধর্মী সুপারিশ প্রদান করা।

 

মৌলিক কাজসমূহ

সময়সীমা

ফোকাল পয়েন্ট

বিভিন্ন ব্যক্তি/শিল্প প্রতিষ্ঠানের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুল্কনীতির অসঙ্গতি দূর করার লক্ষ্যে সুপারিশ প্রণয়নঃ

সর্বোচ্চ ৪ মাস

মোহসিনা বেগম, সহকারী প্রধান

(বাণিজ্য নীতি)

ফোনঃ ৯৩৩৫৯৯৩

(ক) আবেদন প্রাপ্তির পর সংশ্লিষ্ট শিল্প প্রতিষ্ঠান হতে তথ্য/উপাত্ত সংগ্রহ করা;

 

১ মাস

 

(খ) বিশেষ প্রয়োজনে শিল্প প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন এবং সংশ্লিষ্ট সকলের মতামত সংগ্রহের জন্য গণশুনানির আয়োজন করা; এবং

 

১ মাস

 

(গ) বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহের পর বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন প্রণয়ন করে সরকারের নিকট সুপারিশ প্রেরণ এবং গৃহীত কার্যক্রম সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীকে অবহিত করা।

২ মাস

 

TPD5year (2).pdf TPD5year (2).pdf

Share with :