বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১১ নভেম্বর ২০১৭

সদস্যগনের কার্যক্রমের তালিকা

 

সদস্য - আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিভাগ

১।    কমিশনের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন;

২।    বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদনের নিমিত্তবিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন প্রণয়নে সার্বিক তত্ত্বাবধান;

৩।    আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বাণিজ্য চুক্তি সংক্রান্ত নেগোশিয়েশনে বাংলাদেশের কৌশলপত্র প্রণয়নের ক্ষেত্রে  বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে কমিশনের সার্বিক সংযোগ স্থাপন;

৪।    দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বাণিজ্য চুক্তি সংক্রান্ত মতামত প্রণয়নে নির্দেশনা ও পরামর্শ প্রদান;

৫।    দেশের রপ্তানি বাণিজ্য বৃদ্ধিকল্পে নতুন বাণিজ্য সম্পর্ক স্থাপন এবং বিদ্যমান বাণিজ্য সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য পর্যালোচনা পূর্বক সুপারিশ প্রণয়নের ব্যবস্থা গ্রহণ;

৬।    আন্তর্জাতিকসহযোগিতাবিভাগেরবার্ষিক কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি সম্পাদন ও বাস্তবায়নে সার্বিক তত্ত্বাবধান;

৭।    কমিশনের অন্যান্য বিভাগের সাথে সমন্বয় সাধন;

৮।    প্রয়োজনে সরকারের অন্যান্য মন্ত্রণালয়,বিভাগ/সংস্থার সাথে সমন্বয় সাধন;

৯।    অধীনস্থ যুগ্ম-প্রধান (আস-১) ও যুগ্ম-প্রধান (আস-২) এর নৈমিত্তিক ছুটি মঞ্জুর;

১০।   আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিভাগের সকল কর্মকর্তার কার্যক্রম তদারকি;

১১।   সরকার বা চেয়ারম্যান কর্তৃক অর্পিত অন্যান্য কার্য সম্পাদন।

 

সদস্য - বাণিজ্য প্রতিবিধান বিভাগ

 

১।         এন্টি-ডাম্পিং, কাউন্টারভেইলিং, সেইফগার্ড, এসপিএস এবং টিবিটি সংক্রান্ত কার্যাবলির উপর সার্বিক তত্তাবধান এবং এসকাপ বিষয়ের উপর বিশ্ববাণিজ্য সংস্থায় সম্পাদিত চুক্তি, প্রণীত আইন ও বিধির আলোকে গুণগতমান সম্পন্ন প্রতিবেদন চেয়ারম্যান বরাবরে উপস্থাপন;

২।         কমিশনের সদস্য হিসেবে এ সংক্রান্ত সভা ও গণ-শুনানিতে অংশগ্রহণ এবং চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতে সভাপতির দায়িত্ব পালন;

৩।         সচেতনতা ও প্রশিক্ষণ কর্মসূচির সার্বিক তত্ত্বাবধান;

৪।         বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় অংশগ্রহণ;

৫।         বাণিজ্য প্রতিবিধান বিভাগের নিম্নবর্ণিত বিষয়ে সার্বিকতত্ত্বাবধান:-

            (ক)       বার্ষিক কর্মসূচি প্রণয়ন এবং চেয়ারম্যান কর্তৃক অনুমোদন;

            (খ)        অনুমোদিত কর্মসূচি যথাযথভাবে অনুসরণ;

            (গ)        এপিএ এবং শুদ্ধাচার সম্পর্কীত কার্যাবলীর উপর তত্ত্বাবধান;

           (ঘ)        যুগ্মপ্রধান, উপপ্রধান, সহকারী প্রধান, এবং গবেষণা কর্মকর্তাদের সার্বিক কার্যাবলির উপর তত্ত্ববধান;

            (ঙ)        উল্লিখিত কর্মকর্তাদের কাজের মধ্যে সমন্বয় সাধনে ভূমিকা;   

            (চ)        সরকারের নিকট প্রেরিতব্য কমন ইস্যুগুলোর সমন্বয় সাধন সংক্রান্ত বিষয়াদি;

            (ছ)        কমিশনের বার্ষিক প্রতিবেদন প্রণয়ন সংক্রান্ত বিষয়াদি;

            (জ)       সরকার/চেয়ারম্যান কর্তৃক  প্রদত্ত বিভিন্ন কার্যাবলি;

            (ঝ)       নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ: চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন।

 

সদস্য -  বাণিজ্য নীতি বিভাগ

           

(১)      বাণিজ্য নীতি বিভাগের সদস্য উক্ত বিভাগ কর্তৃক গৃহীত কর্মসূচীর বাস্তবায়ন ও পরিচালনার জন্য এবং বাণিজ্যনীতি বিভাগের শিল্প সহায়তা বিশ্লেষণ, উপখাত সমীক্ষা এবং ট্রেড পলিসি মডেলিং ও ডাটাবেইজ অনুবিভাগের বিষয়ে দায়িত্বাবলী পালন করবেন;

(২)      বাণিজ্য নীতি বিভাগের সদস্য কমিশনের একজন সদস্য এবং তিনি প্রচলিত রীতি অনুসারে প্রয়োজনীয় গণশুনাণীতে অংশগ্রহণ করবেন;

(৩)     বাণিজ্যনীতি বিভাগের দায়িত্ব হিসেবে তিনি  বাৎসরিক কর্মসূচীর বিভিন্ন কার্যাবলী বাস্তবায়ন,  তত্ত্বাবধান, সহায়তা ও পরিচালনা করার জন্য বাণিজ্যনীতি বিভাগের যুগ্মপ্রধানকে নির্দেশনা প্রদান করবেন। তাছাড়া, যুগ্ম-প্রধান, উপ-প্রধান, সহকারী প্রধান ও গবেষণা কর্মকর্তার কার্যাবলীও তত্ত্ববধান করবেন;

(৪)      কমিশনের বাৎসরিক কর্মসূচীর বিভিন্ন অংগের কার্যাবলী সম্পাদনে  কর্মরত কর্মকর্তাদের মধ্যে সহোযোগিতা ও সমন্বয় নিশ্চিত করবেন;

(৫)      উপ-খাত সমীক্ষা ও  সহায়তা বিশ্লেষণ এর মাধ্যমে শুল্ক হার পরিবর্তন সম্পর্কিত প্রতিবেদন প্রণয়নে সহোযোগিতা করবেন;

(৬)     কমিশন কর্তৃক অনুষ্ঠিত গণশুনাণী এবং সম্পাদিত  কার্যাবলী  সম্পর্কিত বিষয় কমিশনের বাৎসরিক প্রতিবেদনে  অন্তর্র্ভূক্তির ব্যবস্থা নিবেন;

(৭)      শিল্প সহায়তা বিশ্লেষণ এবং উপ-খাত সমীক্ষা প্রতিবেদন প্রণয়ন করে সরকারের কাছে প্রেরণের ব্যবস্থা নেবেন;

(৮)       শিল্প সহায়তা/শুল্ক সম্পর্কিত বিষয় শনাক্তকরণের নিমিত্ত সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও সরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করবেন;

             (৯)      শিল্প ও বাণিজ্যনীতি পর্যালোচনা করে যুগোপযোগি করার সুপারিশ প্রণয়ন;

            (১০)    বাণিজ্যনীতি বিভাগ কর্তৃক মানসম্পন্ন প্রতিবেদন প্রণয়ন নিশ্চিতকরণ;

            (১১)     দেশের স্বার্থে সরকারের শুল্ক নীতি প্রণয়নে সহায়তা প্রদান;

            (১২)    কমিশনের চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত বিভিন্ন কাজ যেমন গণশুনাণি ও সভা পরিচালনার দায়িত্ব প্রদান;

(১৩)    সরকারী ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক শিল্পকে সহায়তা প্রদানের নিমিত্ত শুল্কহার হ্রাস/বৃদ্ধির অনুরোধ বিবেচনায় তদন্ত পরিচালনা ও ব্যবস্থাদি তত্ত্বাবধান;

(১৪)    আন্তর্জাতিক মূল্যের হ্রাস/বৃদ্ধির কারণে দেশে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের মূল্যের হ্রাস/বৃদ্ধি ঘটে থাকে। এ হ্রাস/বৃদ্ধি যাতে অস্বাভাবিকভাবে না হয়, সে লক্ষ্যে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনে মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। মনিটরিং সেলের প্রধান হিসেবে বিভিন্ন পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণে সদস্য, বাণিজ্যনীতি ভূমিকা পালন করবেন;

(১৫)     অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণে বিভিন্ন পণ্যের আমদানির পরিমান ও মূল্য সংক্রান্ত উপাত্ত সংগ্রহের ব্যবস্থা নেবেন এবং তা বাণিজ্য নীতি বিভাগের ট্রেড পলিসি মডেলিং ও ডেটা বেইজ শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ প্রধান এর তত্তাবধানে রাখার ব্যবস্থা নেবেন;

(১৬)   নগদ সহায়তা সম্পর্কিত মতামত প্রণয়নে মূল্য সংযোজন হার নির্ণয়সহ বিভিন্ন তথ্যাবলী সংগ্রহের এবং তা বিশ্লেষণের ব্যবস্থা নেবেন;  

             (১৭)    প্রয়োজনে শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন জেলা উপজেলা পরিদর্শন করবেন।

             (১৮)    অন্যান্য অর্পিত দায়িত্ব।


Share with :
Facebook Facebook